পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস

পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস : ছাত্র জীবন থেকে শুরু করে চাকরি পাওয়ার আগ পর্যন্ত আমাদেরকে নানান ধরনের পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। এই গুলোর মধ্যে যেমন চাকরির পরিক্ষা রয়েছে তেমনি স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাও এর অন্তর্ভুক্ত। এই সকল পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় নিয়ে সবাই টেনশান করে থাকেন। কিভাবে পড়াশোনা করলে ভালো রেজাল্ট করা যায় বা চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় নিয়ে একজন পরীক্ষার্থী বা চাকুরি প্রত্যাশী যেমন মহাচিন্তায় থাকেন তেমনি অভিভাবকদেরও চিন্তার অন্ত নেই।

কিভাবে নিজেকে চাকরির ইন্টারভিউয়ের জন্য প্রস্তুত করবেন?

পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায়

পরীক্ষায় ভালো করার জন্য অনেকে আবার পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার দোয়া নিয়ে মুখস্ত করে জপতে থাকেন। কেউ কেউ আবার পড়া মনে রাখার সহজ কৌশল রপ্ত করতে থাকেন সাথে লেখা পড়ায় মনোযোগ বৃদ্ধির উপায় হিসেবে পড়াশোনা বিষয়ক টিপস এন্ড ট্রিকস অনুসরন করে থাকেন।

পড়াশোনার জন্য কোন সময় ভালো, পড়ার উত্তম সময় কখন ,পড়ার জন্য সবচেয়ে উপযোগী সময় , রাত নাকি দিন ইত্যেদি বিষয়গুলো নিয়ে চলে নানান ধরনের উপদেশ বিলানো বিনা পয়সায়। তাই আজকে এখানে পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস নিয়ে যথাসাধ্য আলোচনা করা হবে যা ফলো করলে হয়তো ভালো স্টুডেন্ট হওয়ার উপায় গুলো আপনার আয়ত্বে চলে আসবে।

সুন্দর ও আকর্ষনীয় প্রোফেশনাল সিভি তৈরি কিভাবে করবেন ?

কিভাবে পড়াশুনা করলে পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করা যায়

১। রুটিন মাফিক পড়াশুনা করা

পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার জন্য প্রথম কাজ হলো সঠিক নিয়মে পড়াশোনা করা । অর এর জন্য প্রয়োজন একটি কার্যকরী এবং অনুসরনযোগ্য রুটিন তৈরী করা। প্রত্যেকেই পড়ার জন্য রুটিন তৈরী করে কিন্তু ফলো করেনা। তাই এমন একটি রুটিন বানাতে হবে যেন সময়ের একটু হেরফের হলেও তা মোটামুটি মেনে চলা যায়।

রূটিন মাফিক পড়াশুনা করা যথাসময়ে সিলেবাস শেষ করার একমাত্র উপায়। পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করতে হতে পড়াশুনাকে অবশ্যই রূটিনের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে।

ভালো রেজাল্ট করার সহজ উপায়

২। টিচারদের সহায়তায় নিজে নোট বানানো

নোট করে পড়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ। পড়া মনে রাখার সহজ উপায় গুলোর মধ্যে নিজে নোট করে পড়া খুবই কার্যকরী কৌশল। একটু কষ্ট হলেও প্রতিটি পড়া নিজের হাতে নোট বানিয়ে পড়লে খুব সহজে মুখস্ত হয়ে যায় এতে পড়ার পাশাপাশি লেখারও প্রাকটিস হয় বিধায় দ্রুত লেখার অভ্যাস গড়ে উঠে।

নোট করার ফলে কোনো বিষয় বুঝতে সমস্যা হলে শিক্ষকদের সহায়তা নিয়ে তা সমাধান করা সহজ হয় ফলশ্রুতিতে সেই সমস্যা একজন শিক্ষার্থী আর সহজে ভুলেনা বা ভুল করেনা। তাছাড়া একজন শিক্ষক কোনো বিষয় সর্বোচ্চ সহজ করে বোঝানোর চেষ্টা করে থাকেন যেন শিক্ষার্থী সহজে তা অনুধাবন করতে পারে। ক্লাসে কোনো বিষয় না বুঝতে পারলে ক্লাসের বাইরে টিচারকে জিজ্ঞাসা করে বুঝে নেয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। এইজন্য ভালো রেজাল্ট করার সহজ উপায় গুলোর অন্যতম একটি পদক্ষেপ এটি।

পরীক্ষায়-ভালো-রেজাল্ট-করার-উপায়-৭টি-কার্যকরী-টিপস

পরীক্ষায় ভালো করার সেরা উপায়

৩। গ্রুপ স্টাডি  বা ডিসকাশন

পড়া সহজে মেনে রাখার মাধ্যমে  ভাল রেজাল্ট করার উপায় গুলোর মধ্যে গ্রুপ স্টাডি  বা ডিসকাশন খুবই কার্যকরী একটি পদ্ধতি। গ্রুপ স্টাডি এর ফলে পঠিত বিষয় গুলোর রিভিশন হয়ে যায় এতে করে পড়া সহজে মনে থাকে । কোনো কোনো সময় অন্যের কাছ থেকে শোনা বিষয় গুলো মনে রাখা সহজ হয় তবে অবশ্যই সেই গ্রপটাতে যেন সহপাঠীদের অংশ গ্রহন থাকে। তাই গ্রুপ স্টাডি  বা ডিসকাশন পরীক্ষায় ভালো করার সেরা উপায় গুলোর অন্যতম।

অল্প পড়ে কিভাবে ভালো রেজাল্ট করা যায়

 ৪। গল্পের  ছলে পড়া

পড়া মানেই বিরক্তি তার উপর সেই পড়া যদি হয় ক্লাসের পড়া তাহলে তো কথাই নেই। ছেলে মেয়ে পড়তে চায়না বা তাদেরকে পড়তে বসানো যায় না এরকম অভিযোগ অভিভাবকেরা হরহামেশাই করে থাকেন। HSC বা SSC  তে ভাল রেজাল্ট করার উপায় কি এ নিয়ে অনেক অভিভাবকে ঘুম হারাম হয়ে যায়। আবার অল্প পড়ে কিভাবে ভালো রেজাল্ট করা যায় তা নিয়েও আছে বিস্তর জিজ্ঞাসা।

তাই পড়াশুনার একঘেয়েমি বা বিরক্তি দূর করার জন্য গল্পের মাধ্যমে সহজবোধ্য করে পাঠকে উপস্থাপন করতে হবে।গল্পের মাধ্যমে পড়লে  বোরিং ভাবটা  থাকে না। মন প্রফুল্ল করে চাংগা থাকে এবং মজা পাওয়া বা পড়াকে আনন্দ দায়ক করে তুলতে গল্পের আশ্রয় নেয়ার মাধ্যমে সারাদিনই পড়াশোনা করা যায়। পড়াকে গল্পের চরিত্রের সাথে মেলাতে পারলে তা সহজে মনে থাকে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা কমে যায় অনেক। গল্পের ছলে পড়া সঠিক নিয়মে পড়াশোনা করার অন্যতম কৌশল।

স্যার ভাল রেজাল্ট করব কিভাবে?

৫। পজিটিভ মনোভাব বা এটিচুড নিয়ে পড়া

স্যার ভাল রেজাল্ট করব কিভাবে? ক্লাস পরীক্ষায় অনেক গুলো সাবজেক্ট বা বিষয় পড়তে হয়। তাই পড়ার টেবিলে বসলে অনেক গুলো বিষয় পড়ার চিন্তা সামনে চলে আসে এবং পড়াটাকে বোঝা মনে হয়। এই বিশাল পড়া কখন শেষ হবে এমন চিন্তা চলে আসে যার ফলে পড়া থেকে মনোযোগ উদাও হয়ে যায় এবং শেষ পর্যন্ত পড়ার টেবিলে বসা বেশিক্ষন স্থায়ী হয়না । যার ফলে পড়ার সিলেবাস অপঠিতই থেকে যায় এবং পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার আশা, নিরাশা ও হতাশায় পরিণত হয়।

তাই পড়াকে বোঝা মনে যেন না হয় সেই জন্য পজিটিভ মনোভাব নিয়ে পড়া শুরু করতে হবে এবং একসময় দেখবেন আপনার সিলেবাস শেষ এবং আপনার হাতে অফুরন্ত সময় রয়েছে পড়া গুলোকে রিভিশন দেয়ার জন্য। তাই পজিটিভ মনোভাব বা এটিচুড নিয়ে পড়া শুরু করা আপনার পরীক্ষায় সাফল্য লাভের সম্ভাবনা অর্ধেক কাভার করে ফেলবে। তাই পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস এর মধ্যে এটি একটি অন্যতম পিলার।

পড়াশোনা করার সঠিক নিয়ম

৬। পরীক্ষাকে ভয় পেলে চলবেনা

অনেকেই পরীক্ষাকে চরম ভয় পায় তাই পরীক্ষার সময় হলে তারা নানা ধরনের অসুস্থ্যতায় ভোগে। অনেকেরই পরীক্ষার সময় জ্বর ও ডিসেন্ট্রিতে আক্রান্ত হয় কারন পরীক্ষার চরম ভীতি তাদেরকে মানসিকভাবে দূর্বল করে দেয় যা শরীরের উপর প্রভাব ফেলে ফলশ্রুতিতে অসুস্থ্যতা জেকে বসে । তাইতো জিজ্ঞাসা পড়াশোনা করার সঠিক নিয়ম কোনটি স্যার?

পরীক্ষায়-ভালো-রেজাল্ট-করার-উপায়-৭টি-কার্যকরী-টিপস
পরীক্ষায়-ভালো-রেজাল্ট-করার-উপায়-৭টি-কার্যকরী-টিপস

অনেকেই আছে সারা বছর না পড়ে পরীক্ষার আগের রাতে প্রেসার দিয়ে সব পড়া শেষ করতে চায় যা পড়াশোনা করার সঠিক নিয়ম নয় । পরীক্ষা জীবনেরই একটা অংশ এটাকে স্বাভাবিক মনে করে সাহসিকতার সাথে মোকাবেলা করে ভয়কে জয় করতে হবে তাহলেই পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করা সম্ভব হবে। ভয়ের কারনে মানুষ আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়ে এবং জানা সব কিছু ভুলে গিয়ে স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারিয়ে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ে। এই কারনে প্রতিদনের পড়া প্রতিদিন শেষ করতে হবে কোনো পড়া কালকের জন্য ফেলে রাখা যাবেনা। সেই কারনে খুব খুব গুরুত্বপুর্ণ এই স্টেপটি পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস এর।

৭। প্রস্ততি মূলক পরীক্ষায় বেশি বেশি অংশ নেয়া

পড়ার পাশাপাশি বিভিন্ন প্রস্তুতি মূলক পরীক্ষায় অংশ নেয়া একজন পরীক্ষার্থীর আবশ্যকীয় কাজ। পরীক্ষায় অংশ নিলে পরীক্ষা ভীতি দূর হয়ে যায়। পরীক্ষার মাধ্যমে ভূল গুলো ধরা পড়ে ফলে তা শংশোধনের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহন করা যায়। পরীক্ষায় অংশ নিলে টাইম ম্যানেজমেন্ট এর ক্ষেত্রে দূর্বলতা গুলো জানা যায় এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সব প্রশ্নের উত্তর প্রদানের জন্য আইডিয়া হয়ে যায়।

অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায় পরীক্ষার হলে ঢুকলেই সে সব পড়া ভুলে যায় তাই বিভিন্ন মডেল টেষ্ট ও কুইজ পরীক্ষায় অংশ নিয়ে নিজেকে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত করতে হবে। তাই পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করতে হলে নিজেকে আস্তে আস্তে তৈরী করতে হবে। সেই সব বিবেচনায় পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস এর সবচেয়ে ইম্পর্টেন্ট পদক্ষেপ এটি।

HSC বা SSC পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় কি ?

পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় ৭টি কার্যকরী টিপস নিয়ে যথাসাধ্য আলোচনার করার এটি একটি চেষ্টা মাত্র। এর বাইরে আরও উপায় থাকতে পারে সে গুলো অনেকাংশে ভালো ফলাফলের ক্ষেত্রে ভুমিকা পালন করে থেকে। তবে উল্লেখিত ৭টি টিপস বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিধায় জোড় দিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার জন্য এ গুলো মেনে চলতেই হবে এমন কোনো কথা নেই আপানি নিজের মত করে আলাদা ভাবে পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার একটা পরিপূর্ণ প্ল্যান তৈরী করে যথাযথ তা অনুসরন করতে পারেন। তাহলে হয়তো HSC বা SSC পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উপায় গুলো আপনার কাজে আসবে।

আজ পড়বো কাল পড়বো এরকম গা ছাড়া মনোভাব নিয়ে গড্ডালিকা প্রবাহে সময় নষ্ট না করে প্ল্যান করে রূটিন মাফিক পড়াশোনা শুরু করুন দেখবেন পরীক্ষায় আপনার সাফল্য পাওয়া হাতের মুঠোয় চলে এসেছে। পড়াশোনায় বেশি একঘেয়েমি চলে আসলে মাঝে মাঝে বিরতি দিয়ে নিজেকে চাংগা করে তুলতে পারেন। একটানা অনেক্ষন পড়ার টেবিলে না থকে ছোট ছোট ব্রেক দিয়ে দিয়ে পড়তে পারেন যা আপনাকে পড়ায় মনোযোগ বাড়াতে এবং পড়া মনে রাখার ক্ষেত্রে সহযোগিত করবে। উল্লেখিত পয়েন্ট গুলো যথাযথ ভাবে মেনে পড়াশুনা করুন দেখবেন পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করা আপনার জন্য সহজ হয়ে গেছে।

Leave a Comment