চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় ৭ টি কার্যকরি টিপস

চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় ৭ টি কার্যকরি টিপস: চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় খুজে বেড়ায় চাকরি প্রত্যাশী সকল ভাই বোনেরা। চাকরি মানেই পরীক্ষা সেটা সরকারি হোক বা বেসরকারি চাকরি হোক। চাকরির পড়ার কৌশল কি হবে চাকরির জন্য পড়ার রুটিনটা কি হবে চাকরির জন্য কত ঘণ্টা পড়তে হবে কিংবা চাকরির জন্য কি কি বই পড়তে হবে সেই বিষয়টা নিয়েও টেনশান করে থাকেন চাকুরি প্রার্থীরা।

কীভাবে পড়লে চাকরির পরীক্ষায় মিলবে সাফল্য চাকরির পড়াশোনা কি হবে চাকরির পরীক্ষার পরিকল্পনা কিভাবে করলে ভালো হবে পাশপাশি  চাকরির পরিক্ষায় আমাদের ভুল সিদ্ধান্ত গুলো কি তা তুলে ধরবো এখানে। চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার অনেক গুলো ফ্যাক্টর বিদ্যমান থাকলেও মূলত  চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় ৭ টি কার্যকরি টিপস নিয়েই বেশি ফোকাস দেয়া হবে আজকের এই পর্যালোচনায়।

সুন্দর ও আকর্ষনীয় প্রোফেশনাল সিভি তৈরি কিভাবে করবেন ?

চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায়

১। নিয়মিত পড়া

চাকরির পরীক্ষায়  ভালো করতে হলে নিয়মিত পড়ার কোনো বিকল্পই নেই। চাকরি মানেই পরীক্ষায় অংশ গ্রহন তা লিখিতও হতে পারে কিংবা শুধু মৌখিকও হতে পারে। আর পরীক্ষা মানেই প্রশ্ন আর প্রশ্ন মানেই সঠিক উত্তর। সঠিক উত্তর দিতে হলে আপনাকে জানতে হবে আর জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই পড়তে হবে। তাই চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় গুলোর মধ্যে নিয়মিত পড়াকে প্রথম কার্যকরী টিপস হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। প্রবাদ আছে যতই পড়িবে ততই শিখিবে।

২। নিয়মিত মকআপ পরীক্ষায় অংশ নেয়া

চাকরির লিখিত পরীক্ষায় নির্দিষ্ট সময় থাকে এবং সেই সময়ের মধ্যে সকল প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিতে হয়।পুর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়া পরীক্ষায় অংশ নিয়ে টাইম ম্যানেজমেন্ট ঠিকভাবে করা সম্ভব হয়না তাই বিভিন্ন প্রস্তুতি মূলক পরীক্ষায় অংশ নিলে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্পূর্ণ উত্তর দেয়া সম্পর্কে একটা স্পষ্ট ধারনা বা আইডিয়া হয়ে যায়। এই সকল পরীক্ষা থেকে অর্জিত অভজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে চাকরির জন্য দেয়া পরীক্ষায় ভালো করা সহজ হয়।

বিসিএস পরীক্ষায় ভালো করার উপায়

৩। দ্রুত ও নির্ভূল লেখার প্রাকটিস করা

আমরা পড়ি কিন্তু লেখার কাজটা করিনা যার ফলে লেখার স্পীড থাকে কম আর পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষার হলে সব প্রশ্নের উত্তর দেয়ার মত সময় পাননা। ফলহশ্রুতিতে পরীক্ষায় ভালো করার দোয়া ও আমল আমরা হন্যে হয়ে খুজতে থাকি কিন্তু চাকরির পরিক্ষায় সাফল্য পাওয়া সেই সোনার হরিণ আর ধরা দেয়না। তাই পড়ার পাশাপাশি সরকারি চাকরির প্রস্তুতির জন্য না দেখে লেখার অভ্যাস করতে হবে।লেখার সময় যে সব ভুল গুলো হবে সে গুলোকে শুধরে নিয়ে সরকারি চাকুরি বা বিসিএস পরীক্ষায় ভালো করার জন্য নিজেকে ভালোভাবে প্রস্তুত করা সম্ভব হবে।

৪। প্রাসঙ্গিক বিষয় গুলো পড়া

লিখিত পরীক্ষায় যে বিষয়গুলো নিয়ে প্রশ্ন করা সেই বিষয় গুলোকে প্রাধান্য দিয়ে চাকরির জন্য পড়ার রুটিন মোতাবেক নিজেকে প্রস্তত করা। বিগত কয়েক বছরের প্রশ্ন রিসার্চ করে বিষয়গুলো নির্বাচন করে প্রত্যেক বিষয়ে নিজেকে চাকরির পড়াশোনার জন্য পূর্ণাঙ্গ রুপে তৈরী করা। আজে বাজে বিষয় নিয়ে ঘাটাঘাটি করে সময় নষ্ট না করে মূল্যবান সময়কে কিভাবে পড়লে সরকারি চাকরি পাওয়া সহজ হবে সেই ভাবে কাজে লাগানো।

চাকরির পরীক্ষায় সাফল্য পাওয়ার সহজ উপায়

৫। ভূলের পূনরাবৃত্তি না ঘটানো

পরীক্ষায় কিছু না কিছু ভূল হবেই সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে এবং শোধরাতে হবে যেন ভুলের পূনরাবৃত্তি না ঘটে। কি ভুল হচ্ছে, কেন ভুল হচ্ছে তার প্রকৃত কারন খুজে বের করে যথাযথ কারেক্টিভ মেজার নিতে হবে। একই ভুল বার বার করা যাবেনা।যত প্রাক্টিস করবেন ততই আপনার ভূলগুলো ধরা পড়বে এবং ভুল গুলো সংশোধন করে একসময় নিজেকে যোগ্যরুপে গড়ে তুলতে পারবেন। কারন Practice makes a man perfect.

৬। গ্রুপ ডিসকাশন বা আলোচনা করা

অনেকেই পড়েন কিন্তু মানে রাখতে পারেন না। গ্রুপ স্টাডি বা গ্রুপ ডিসকাশন পড়া গুলো মনে রাখার ক্ষেত্রে খুবই কার্যকরি ভুমিকা পালন করে থাকে। কয়েকজন মিলে একটা স্টাডি গ্রুপ বানিয়ে ফেলুন এবং প্রতিদিন সময় করে পঠিত বিষয়গুলো আলোচনা করুন। অনেক সময়য় অন্যের নিকট থেকে শোনা বিষয়গুলো আমাদের মনে গেথে যায় এবং স্মরণ করা সহজ হয় যা পরীক্ষার হলে প্রশ্ন উত্তর প্রদানে আপনাকে নির্ভার করবে।

চাকরির পরীক্ষায় সাফল্য লাভের উপায় ও করনীয় দেখুন ভিডিও

চাকরির পরীক্ষায় সাফল্য লাভের উপায়

কীভাবে পড়লে চাকরির পরীক্ষায় মিলবে সাফল্য

৭। সুন্দর উপস্থাপনা

মানুষ সুন্দরের পূজারী তাছাড়া প্রবাদ আচে আগে দর্শনদারী তারপর গুনবিচারী। পরীক্ষার খাতায় প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর সুন্দর হাতের লেখা এবং গোছালোভাবে উপস্থাপন করতে পারলে তা পরীক্ষকের দৃষ্টি আকর্ষন করে । পরীক্ষক খুশি হলে খাতায় বেশি নাম্বার পাওয়ার সম্ভাবনা অনেকগুন বেশি থাকে। নাম্বার বেশি পেলে চাকরির পরীক্ষায় বা বিসিএস পরীক্ষায় ভালো করার বা চাকরির পরীক্ষায় সাফল্যলাভের সম্ভাবনা আপনাকে হাতছানি দিয়ে ডাকবে।

তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে বেশি সুন্দর করতে গিয়ে যেন সময়ের অভাব না হয় সেই জন্য টাইম ম্যানেজমেন্ট প্রোপারলি করতে হবে। চাকরির পরীক্ষায় পড়াশোনার জন্য নিজে নোট আকারে উত্তর গুলো তৈরী করে প্রাকটিস করা এর ফলে বিষয় গুলো আয়ত্বে চলে আসে। উত্তর লেখার ক্ষেত্রে মেমোরিটেকনিক ব্যাবহার আপনার প্রশ্নের উত্তর যথাযথ লিখতে অনেকটা হেল্পফুল হবে।

চাকরির পরীক্ষায় ভালো করার উপায় ৭ টি কার্যকরি টিপস নিয়ে আমাদের আলোচনা ভালো লাগলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। উল্লেখিত স্টেপস গুলো অনুসরন করতেই হবে এমন কোনো কথা নেই। আপনার নিজস্ব চিন্তাভাবনা থাকলে সেই মোতাবেক চাকরির পরীক্ষার পরিকল্পনা নিজের মত করে সাজিয়ে নিয়মিত ফলো করতে পারেন। এখানে আমরা আপনাকে একটা গাইডলাইন দেয়ারা চেষ্টা করেছি মাত্র।

পরিশেষে আমরা বলতে চাই প্রতিদিন পড়াশোনার সঙ্গে লেগে থাকা, পঠিত বিষয় গুলো প্রতিদিন প্র্যাকটিস করা, রুটিন মাফিক প্রতি সপ্তাহে রিভিশন করা, প্রতিদিন মক টেস্টে অংশ নেয়ার সাথে অনলাইন পড়াশোনার পরিধি বাড়িয়ে বিভিন্ন  চাকরির পরীক্ষায় আসা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর গুলো আয়ত্ব করার মাধ্মে নিজেকে পরিপুর্ণভাবে গড়ে তুলুন তাহলেই চাকরির পরীক্ষায় সাফল্য পাওয়া সহজ হবে আপনার জন্য।

চাকরির পরীক্ষায় সাফল্য পাওয়ার সহজ উপায়

চাকরির পরীক্ষায় সাফল্য পাওয়ার সহজ উপায় গুলো মনে থাকার সুবিধার্থে স্টেপস গুলো এখানে ইনফোগ্রাফিকের মাধ্যমে তুলে ধরা হলো।

শুধু ছবি দেখলেই হবেনা উল্লেখিত পদক্ষেপ গুলো মন মগজে গেথে নিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যতে হবে।

ছোট বেলায় শিশু শিক্ষায় আমরা পড়েছি –

” পারিব না এ কথাটি বলিও না আর,

একবার না পারিলে দেখ শতবার”।

তাই হাল ছাড়া যাবেনা, পরীক্ষাকে ভয় করা যাবেনা। চ্যালেঞ্জ নিয়ে ভয়কে জয় করে সাফল্য ছিনিয়ে আন্তেই হবে সেই প্রত্যয় নিয়ে দৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে যেতে হবে।

7 effective tips on how to do well in a job test

Leave a Comment